এই সপ্তাহে বাজারে আসছে করোনার মেডিসিন ‘রেমডেসিভির’

প্রকাশিত: ৮:১৯ অপরাহ্ন, মে ৪, ২০২০

করোনা চিকিৎসার জরুরি প্রয়োজনে ১ মে অ্যান্টি ভাইরাল ‘রেমডেসিভির’ ওষুধ ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে আমেরিকার দ্য ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন। করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগীদের চিকিৎসার জন্য চলতি সপ্তাহেই এই ওষুধ বাজারে আসবে বলে জানিয়েছেন রেমডেসিভির প্রস্তুতকারক কোম্পানি গিলিয়েড সায়েন্সেসের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ডেন ও’ডে।

নিউইয়র্ক পোস্ট-এর এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনা চিকিৎসায় ‘রেমডেসিভির’ ওষুধ ব্যবহারের অনুমোদন পাওয়ার পর ৩ মে গিলিয়েড সায়েন্সেসের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ডেন ও’ডে এই ঘোষণা দিয়েছেন।
ডেন ও’ডে বলেন, ‘আমরা এই সপ্তাহেই করোনা সংক্রমিত রোগীদের কাছে ওষুধটি পৌঁছে দিতে চাই। কোম্পানি প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে এই মুহূর্তে প্রায় ১৫ লাখ রেমডেসিভিরের ভায়াল দান হিসেবে উৎপাদন করছে। এর সবগুলোই সরকারের কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে। পরে সরকার জরুরি প্রয়োজন অনুযায়ী সারা দেশে সরবরাহ করবে। তিনি আরও বলেন, ‘মানুষ কী রকম পরিস্থিতির মধ্যে আছে তা আমরা অনুধাবন করতে পারছি বলেই এই কাজ করছি। মানুষের এখন ওষুধ দরকার। আর আমরা নিশ্চিত করতে চাই যে এই রোগীদের যেন ওষুধ সঠিক উপায়ে দেওয়া হয়।’
সংস্থাটি এর আগে ঘোষণা করেছিল, তারা বিনা মূল্যে প্রায় ১৫ লাখ ভায়াল অনুদান দিচ্ছে। ও’ডে বলেন, সরকার আগে নির্ধারণ করবে দেশের কোন এলাকা সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ। তারপর সরকার সেই এলাকার রোগীদের জন্য এই ওষুধ সরবরাহ করবে। ক্লিনিক্যাল ও ফেডারেল ট্রায়ালে পরীক্ষিত এই ১৫ লাখ ভায়াল দিয়ে এক থেকে দুই লাখ রোগীকে চিকিৎসা সেবা দেওয়া যাবে।
করোনাভাইরাসের পরীক্ষামূলক ওষুধ রেমডেসিভির নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরেই আশাব্যঞ্জক কথা শোনা গিয়েছিল। গত ২৯ এপ্রিল করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পরীক্ষামূলক ওষুধ রেমডেসিভির নিয়ে আশার কথা বলেছিলেন মার্কিন গবেষকেরা। ওষুধটি নিয়ে একটি ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে ৩০ শতাংশ দ্রুত রোগীর সেরে ওঠার প্রমাণ পাওয়া যায়।
ওষুধটি মূলত ইবোলার চিকিৎসায় তৈরি হয়। সারা বিশ্বের হাসপাতালগুলোর সঙ্গে যুক্ত একটি মার্কিন পরীক্ষায় প্রাথমিক ফলাফলে দেখা গেছে, রেমডেসিভির প্রয়োগে সেরে ওঠার সময় ১৫ দিন থেকে ১১ দিনে নেমে এসেছে। সাধারণ ফ্লুর ক্ষেত্রে ইনফ্লুয়েঞ্জার ওষুধ তামিফ্লু যে প্রভাব ফেলেছে, এটি তার অনুরূপ।
আমেরিকার শীর্ষ সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ও আমেরিকার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেকশন ডিজিজেসের পরিচালক অ্যান্টনি এস ফাউসি বলেছেন, তথ্য বলছে, রেমডেসিভির দ্রুত সেরে ওঠার ক্ষেত্রে ইতিবাচক প্রভাব পরিষ্কার।